Dec 2, 2014

কথোপকথন-এক, দুই, তিন



কথোপকথন-০১

-নাম কি তোমার?
-আমি পরী।
-কি পরী? লাল পরী, নাকি নীল পরী?
-আমি লাল পরীও না, নীল পরীও না, আমি কালো পরী।
-পরীরাতো সুন্দর হয়, পাগল করা সুন্দর, তুমি কালো কেনো?
-আমি কালো হলেও সুন্দর।
-তাই নাকি?
-হুম।
-তুমি তাহলে ব্ল্যাক ডায়মন্ড।
-না আমি ডায়মন্ড না, আমি পরী, কালো পরী।
-তোমাদের দেশ নাকি অনেক সুন্দর?
-হুম অনেক সুন্দর, স্বপ্নের ছেয়েও সুন্দর, কল্পনার ছেয়েও সুন্দর।
-তাই!!
-আমার সব স্বপ্ন তো সুন্দর হয় না, কিছু ভালো, কিছু কালো কিছু এলোমেলো।
-হুম, আমি কালো হলেও আমার দেশ কালো নয়।
-আমাকে নেবে তোমাদের দেশে?
-আমরা ছেলেদের নেই না।
-কি বলো!!! পরীরা তো ছেলেদেরই ওদের দেশে নিয়ে যায়, নিয়ে গুম করে ফেলে, কাউকে ফেরত দেয় কাউকে দেয় না।
-আমি নেইনা, কাউকে গুমও করিনা।
-আমাকে নিয়ে যাও তোমাদের দেশে। এই দেশ ভালো লাগে না আর।
-কেনো ভালো লাগেনা এই দেশ?
-এই দেশে মানুষ মানুষকে ধরে নিয়ে গুম করে ফেলে, খুন করে ফেলে, হরতাল করে, ভাংচুর করে, আগুনে পুড়িয়ে মারে, ভবন চাপা পরে মরে/মারে, নির্যাতন করে, আরো অনেক খারাপ কাজ করে, বলা যাবেনা।
-হুম আমি সব জানি।
-আচ্ছা পরী, তোমাদের এখানে কি হরতাল হয়?
-নাহ, হরতাল কি আমরা চিনিনা, এই শব্দটা কেউ জানেই না।
-আহ!, তোমাদের দেশে কত শান্তি।
-আমাকে নিয়ে যাও পরী তোমাদের দেশে।
-আমি নিতে পারিনা।
-কেনো পারোনা? আমিতো জানি, কাউকে না কাউকে ঠিকই একদিন নিয়ে যাবে। তবে আমাকে কেনো নয়?
-আমি এখন চলে যাবো, তুমি ঘুমিয়ে পরো।
-আমার ঘুম আসবে না।
-কেনো আসবেনা?
-তুমি আমার ঘুম কেড়ে নিয়ে গিয়েছো।
-তাহলে আমি চলে যাই। আমি চলে গেলে তোমার ঠিকই ঘুম চলে আসবে।
-চলে যাবে?
-হুম চলে গেলাম, আজ আর নয়, কাল কথা হবে।

বাউন্ডুলে আতিক
ঢাকা-১৭-০৬-১৩
---------------------------------------------------------------------------------------------------------------

কথোপকথন-০২

-এই অসময়ে তুমি?
-আমাদের সময় অসময় নেই, যখন ডাকবে তখনি চলে আসতে পারি।
-আমিতো এখন ডাকিনাই তোমায়।
-তুমি মিথ্যে বলছো, তুমি মনে মনে আমায় ডেকেছিলে।
-নাহ আমার ঘুম ভেঙ্গে গিয়েছিলো তো।
-হুম বুঝেছি।
-পরী, তুমি গান গাইতে পারো?
-নাহ আমি গান গাইতে পারিনা। আমার গলা ভালো না।
-তুমি মিথ্যে বলছো, আমি জানি তুমি ভালো গান গাও।
-তুমি কিভাবে জানো?
-সেদিন শুনেছি গুন গুন করে গান গাইছো।
-সেটা শুধু আমার জন্য।
-অহ! তুমি অন্যের জন্য গান গাইতে পারো না?
-পারি, তবে কাউকে শুনাতে ভাল লাগেনা।
-আচ্ছা পরী, তোমাদের দেশে কি বৃষ্টি হয়?
-হয় তবে আমাদের দেশে না, আমার চোখে।
-মানে? তোমার চোখে কিভাবে বৃষ্টি হয়?
-আমি পরী বলে কি আমার কোন কষ্ট নেই?
-তোমার আবার কিসের কষ্ট?
-অনেক কষ্ট, অনেক কিছু না পাওয়ার কষ্ট।
-তোমরা তো চাইলেই সব পাও। আবার না পাওয়া কিসের?
-সেটা তুমি বুঝবেনা।
-বুঝালেই তো বুঝি।
-বুঝা লাগবেনা থাক, তুমি অন্য কথা বলো।
-পরী তোমার মন খারাপ হচ্ছে।
-নাহ হচ্ছে না।
-পরী, তুমি কিছু একটা লুকাচ্ছো।
-নাহ লুকাচ্ছি না, আচ্ছা, এতো রাত জেগে আছো কেনো তুমি?   
-তুমি আমার কথাটা এড়িয়ে গেলে, আমার ঘুম আসতেছেনা। মাথায় পোকা ডুকেছে।
-কিসের পোকা?
-কবিতার পোকা?
-তুমি কবিতা লিখতে পারো নাকি?
-নাহ পারিনা, চেষ্টা করি লেখতে, পরী, কবিতা তোমার ভালোলাগে?
-হুম ভালোলাগে, সব কবিতা না, বিরহ, দুঃখবোধ, আর জ্যোৎস্নার কবিতা বেশি ভালো লাগে।
-তোমাদের দেশে জ্যোৎস্না আছে নাকি?
-হুম, আমরা চাইলেই জোৎস্না দেখতে পারি, যখন তখন।
-আমাকে জোৎস্না দেখাতে পারবে এখন?
-কিভাবে দেখাবো, তোমাকে তো আমাদের দেশে নেয়া যাবে না।
-আবার যখন আসবে, আমার জন্য একমুটো জোৎস্না নিয়ে এসো।
-জানিনা আনতে পারবো কিনা, আজ আমি গেলাম।
-আবার কখন আসবে পরী?
-যখন ডাকবে। তুমি ঘুমাও, তোমার চোখ দুটো ঢুলুঢুলু হয়ে আছে ঘুমে।


বাউন্ডুলে আতিক
ঢাকা-১৮-০৬-১৩
---------------------------------------------------------------------------------------------------------------

কথোপকথন-০৩

-এতো কথা বলছো কেনো? তুমি অসুস্থ, তোমার গায়ে অনেক জ্বর, চুপ করে থাকো।
-নাহ আমি অসুস্থ নই, সম্পূর্ণ সুস্থ। আচ্ছা পরী, আমার মাথা ভেজা কেনো?
-তোমার মাথায় পানি ঢালা হয়েছে, এখন জলপট্টি দেয়া হবে। কথা বলোনা, চুপ করে থাকো।
-আমিতো চুপ করেই আছি, কোন কথা বলছিনা, আমি চুপ থাকতেই ভালোবাসি, চুপ করে থাকা আমার জন্য ভালো, চিন্তা করার সুযোগ মিলে। আচ্ছা পরী আমিতো তোমায় আজ ডাকিনি, তবে কেনো এসেছো?
-তুমি ডেকেছো, জ্বরের ঘোরে আমার নাম ধরে বার বার প্রলাপ বকেছো। তাই এসেছি। শুনো আমি আর আসবোনা, তুমি ডাকলেও আসবোনা।
-কেনো আসবেনা?
-কারন আমি তোমার কেউ নই, আমি পরী ও না।
-তাহলে তুমি কে?
-আমি তোমার মনের অলিক কল্পনা মাত্র, বাস্তবে আমার কোন অস্তিত্ব নেই। তুমি আমাকে তোমার মনের মত করে বানিয়ে নিয়েছো।
-নাহ তুমি কল্পনা নও, সেদিন সন্ধ্যায় তুমি আমাকে নিয়ে ঘুরতে বেরিয়েছিলে। আমরা শহর পেরিয়ে অনেক দূরে গিয়েছিলাম। একটা ব্রিজের পাশে। তুমি বলেছিলে আজ আমি তোমার অতিথি। অন্য কোন একদিন তুমিও আমার অতিথি হবে। অনেক কথা হয়েছিলো সেদিন। আমি তোমাকে আধারে মিটি মিটি জোনাকি দেখিয়েছিলাম। জোনাকি দেখে তুমি মোটেও অবাক হওনি। আচ্ছা পরী, তোমাদের দেশে কি জোনাকি আছে?
-হুম আছে, অনেক আছে, তুমি দেখলে পাগল হয়ে যাবে, আমাদের জোনাকিরা অনেক আলোয় জ্বলে, লাল, নীল, হলুদ, সবুজ, সোনালী, রুপালী।
-আর বলোনা, শুধু শুধু আমার তৃষ্ণা বাড়িয়ে দিও না। তোমাদের দেশের বর্ণনা যতই দেবে ততই সেখানে যাওয়ার তৃষ্ণা আমার বাড়বে।
-তুমি কিন্তু চুপ নেই। কথা বলেই যাচ্ছো।
-পরী তুমি কি সত্যই আর আসবেনা?
-জানিনা, হয়তো বা না।

বাউন্ডুলে আতিক
ঢাকা-১৯-০৬-১৩